টেকহাবস

মেইজু ইপি৫১ স্পোর্টস ব্লুটুথ হেডফোন [রিভিউ+গিভঅ্যাওয়ে]

মেইজু (Meizu) কোম্পানিটিকে হয়তো আপনারা সবাই মুলত স্মার্টফোন ম্যানুফ্যাকচারার ব্র্যান্ড হিসেবেই চেনেন। গত বছরের অন্যতম ভালো বাজেট স্মার্টফোন Meizu M6 Note বাংলাদেশের বাজারে এভেইলেবল হওয়ার পরে থেকেই মেইজু ব্র্যান্ডটি আরও বেশি করে বাংলাদেশের মানুষের সামনে আসে। তবে মেইজু শুধুমাত্র স্মার্টফোনই তৈরি করেনা, বরং বিভিন্ন ধরনের অ্যাক্সেসোরিস, স্পিকার, হেডফোন এবং পাওয়ারব্যাংকও তৈরি করে থাকে মেইজু।

Gearbest কে ধন্যবাদ এই প্রোডাক্টটির রিভিউ ইউনিট এবং গিভঅ্যাওয়ে স্পনসর করার জন্য

টেকহাবসে এখনো পর্যন্ত আমরা কোন প্রোডাক্ট কিংবা কোন অ্যাক্সেসোরিস এর কোন হ্যান্ডস অন রিভিউ করিনি। তবে Gearbest আমাদেরকে এই হেডফোনটির একটি রিভিউ ইউনিট সেন্ড করায় এই হেডফোনটির রিভিউ করছি ৪-৫ দিন ব্যবহার করার পর, যদিও সত্যি কথা বলতে এই হেডফোনটির থেকে প্রথমদিকে আমার খুব বেশি এক্সপেক্টেশন ছিলো না। কারনটা তো বুঝছেনই, খুব বেশি পরিচিত ব্র্যান্ড না তাই।

যাইহোক, মেইজুর এই ইপি৫১ ব্লুটুথ হেডফোনটি আমি গত কয়েকদিন যাবত নিজেই ব্যবহার করেছি এবং এই স্বল্প সময়ের মধ্যে এই হেডফোনটি নিয়ে আমার অভিজ্ঞতা কেমন ছিলো সেগুলো নিয়ে আলোচনা করেই একটি অনেস্ট রিভিউ দেওয়ার চেষ্টা করবো।

আনবক্সিং

হেডফোনটির প্রাইস 30 USD, যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ২৬০০ টাকার মতো

এই হেডফোনটি পাঠিয়ে দেওয়ার পরে আমার কাছে পৌঁছাতে সময় লেগেছে প্রায় ২৫ দিনের মতো যা একেবারেই স্বাভাবিক। এই হেডফোনটির আনবক্সিং এই প্রাইস রেঞ্জের অন্যান্য প্রিমিয়াম হেডফোনের মতোই। প্রায় একটি মিডরেঞ্জ স্মার্টফোনের সমান একটি বক্সেই এসেছিলো এই হেডফোনটি। বক্সটির সবদিকে প্লাস্টিক র‍্যাপিং করা ছিলো। এছাড়া আনবক্স করার সময় দেখে মনে হয়নি যে এই হেডফোনটির প্যাকেজিং ফ্যাক্টরি থেকে বের করার পর থেকে একবারও খোলা হয়েছিলো। অন্তত লাগেজে আসা শাওমি ফোনগুলোর তুলনায় এই হেডফোনটির প্যাকেজিংও আরো ভালো ছিলো। আর হ্যা, এছাড়া হেডফোনটির প্যাকেজটি প্লাস্টিক র‍্যাপিং এর ওপরেও আরও ২ লেয়ারের শক্ত পলিথিন ছিলো যাতে শিপিং এর সময় প্যাকেজটি ক্ষতিগ্রস্থ না হয়।

মেইজু ইপি৫১

বাইরের দেশের কোন অনলাইন শপ থেকে কোন প্রোডাক্ট কিনলে আমাদের প্রধান চিন্তা হয় ডেলিভারি টাইম এবং কাস্টম চার্জ নিয়ে। ডেলিভারি টাইম কতদিন লাগে তা আমি প্রথমেই বলেছি। এছাড়া সৌভাগ্যবশত আমাকে এই হেডফোনটির জন্য কোনরকম কাস্টম চার্জও দিতে হয়নি। আশা করি আপনি হেডফোনটি কিনলে আপনাকেও কোন ডেলিভারি চার্জ দিতে হবেনা। তবে আনবক্সিং এক্সপেরিয়েন্সই সবকিছু নয়।

মেইজু ইপি৫১

যাইহোক, এই হেডফোনটির সাথে আপনি আরও যা যা পাবেন তা হচ্ছে একটি চারজিং ইউএসবি ক্যাবল, হেডফোনটি সুরক্ষিতভাবে রাখার জন্য একটি হার্ড প্লাস্টিকের পাউচ এবং তিনটি আলাদা আলাদা সাইজের এক্সট্রা সিলিকনের এয়ারবাডস যার একটি Small, একটি XL এবং একটি XXL সাইজের। এছাড়া হেডফোনের সাথে ডিফল্ট এয়ারবাডস তো থাকছেই।

মেইজু ইপি৫১

ইউজিং এক্সপেরিয়েন্স

এই হেডফোনটি যথেষ্ট লাইটওয়েট, যার ফলে এটি ব্যবহার করার সময় কানে এক্সট্রা খুব বেশি ভারী বা এই ধরনের কোন অনুভুতি হয়না। এছাড়া মেইজুর দাবীমতে এই হেডফোনটি ন্যানো ওয়াটার রেসিস্ট্যান্ট যার মানে হচ্ছে তারা এই হেডফোনটিতে ন্যানো ওয়াটার রেসিস্ট্যান্ট লেয়ার নামের কিছু একটা ব্যবহার করেছে যার ফলে এই হেডফোনটি সুয়েট-প্রুফ। যেহেতু এই হেডফোনটি আইপি সার্টিফাইড ওয়াটার রেসিস্ট্যান্ট নয়, তাই এটিকে আমি পানিতে ডুবিয়ে দেখিনি। তবে সুয়েট-প্রুফ দাবী করায় এটির এয়ারটিপসের ভেতরে হালকা পানির ফোঁটা ফেলে দেখেছি অনেকবার। প্রত্যেকবার হেডফোনটির কোন ক্ষতিই হয়নি। তবে পানি ঢুকে এয়ারবাডসটির গর্তটি ব্লক হয়ে গেলে সাউন্ড অনেকটা খারাপ হয়ে গেছে যা হেডফোনটি একবার ঝেড়ে পানি বের করে ফেললেই আবার ঠিক হয়ে গেছে।

এছাড়া এই হেডফোনের আরেকটি ব্যাপার আমার খুবই ভালো লেগেছে। তা হচ্ছে হেডফোনটির দুটি এয়ারটিপস এর পেছনেই ম্যাগনেট আছে যা ব্যবহার না করার সময় হেডফোনদুটিকে একসাথে আটকে রাখে। যার ফলে ব্যবহার না করে গলার সামনে লকেটের মতো ঝুলিয়ে রাখা যায় এবং ব্যবহার করার সময় খুব দ্রুত কানে নেওয়া সম্ভব হয় যা খুবই কনভেনিয়েন্ট। ঘাড়ের পেছন থেকে নিয়ে ব্যবহার করলে হেডফোনটির বিল্ট ইন মাইক্রোফোনটি ভালোভাবে কাজ করেনা। কারন, তখন মাইক্রোফোনটি আপনার ভয়েসের বিপরীতদিকে চলে যায়। তাই শুধুমাত্র লিসেনিং এর সময়ই ঘাড়ের পেছন থেকে ব্যবহার করতে পেরেছি। তবে কথা বলার সময় বা অন্য যেসময় মাইক্রোফোনটির দরকার হয়েছে তখন হেডফোনটি গলার সামনে থেকে ব্যবহার করতে হয়েছে। এটিকে কোন ইস্যু ঠিক বলা যায়না, তবে নোটিস করার মতো একটি অসুবিধা বলা যায়।

মেইজু ইপি৫১

এছাড়া হেডফোনটির মাইক্রোফোনে আমি কয়েকবার কিছু ইস্যু লক্ষ্য করেছি, যদিও সেটি খুব কম। অধিকাংশ সময়ই হেডফোনটির বিল্ট-ইন মাইক্রোফোন ভালোভাবেই কাজ করে, তবে অনেকক্ষেত্রে এটি ব্যবহার করে ফোনে কথা বলার সময় অপরপাশেরজন অনেকসময় বলেছে যে কথাগুলো ঠিকমতো শোনা যাচ্ছে, তবে কিছুটা ভেঙ্গে ভেঙ্গে আসছে। এই সমস্যাটি আবার হেডফোন অফ করে অন করলেই ঠিক হয়ে গিয়েছে। তবে মাঝে মাঝে এই হেডফোনে এই সমস্যাটি দেখতে পেয়েছি ঠিকই। আপনি যদি হেডফোবে মাইক্রোফোন খুব কম ব্যবহার করেন, তাহলে এই সমস্যাটি আপনার কাছে কোন সমস্যাই হবেনা আশা করা যায়। আরও Cons বলতে হলে, এই হেডফোনটি ওয়্যারগুলোকে আমি আরেকটু স্ট্রং আশা করেছিলাম, তবে যতটা স্ট্রং আশা করেছিলাম, ওয়্যারগুলো তার থেকে অনেকটাই পাতলা এবং উইক। তবে হেডফোনটির এয়ারবাডসগুলো এমনভাবে ডিজাইন করা যাতে সেগুলো সহজে কান থেকে বেরিয়ে যেতে না পারে। স্পোর্টস হেডফোন হওয়ায় আমি এই হেডফোনটি ব্যবহার করা অবস্থায় দৌড়ে দেখেছি

সেটাপ এবং কানেক্ট

এই হেডফোনটির সেটাপ এবং ফোনের সাথে কানেক্ট করা খুবই সহজ। হেডফোনটির ওয়্যারের মাঝখানের দিকে দুটি বাটন,একটি স্ট্যাটাস লাইট, একটি হিডেন চারজিং পোর্ট এবং মাইক্রোফোন আছে। এরমধ্যে (+) চিহ্নিত বাটনটি ভলিউম বাড়ানোর জন্য এবং (-) চিহ্নিত বাটনটি ভলিউম কমানোর জন্য। এগুলোকে একবার চাপলে ভলিউম বাড়বে এবং কমবে (যখন এটি ফোনের সাথে কানেক্টেড থাকবে)। এছাড়া লং প্রেস করে প্লে করা মিউজিকের প্লেলিস্টের আগের মিউজিক এবং পরের মিউজিকে নেভিগেট করা যাবে। হেডফোনটি যখন আপনি চার্জ দেবেন, তখনও একটি রেড লাইট দিয়ে ইন্ডিকেট করা হবে যে চার্জ হচ্ছে।

হেডফোনটি অন করার জন্যও (+) বাটনটি লং প্রেস করতে হবে। তখন স্ট্যাটাস লাইটটি ব্লু হবে এবং যখন হেডফোনটি কানেক্ট হতে রেডি হবে তখন স্ট্যাটাস লাইটটি ব্লু এবং রেড লাইট ব্লিংক করবে। এরপর আপনার স্মার্টফোনের ব্লুটুথ অপশনে গিয়ে এভেইলেবল ডিভাইস থেকে Meizu EP51 ডিভাইসটিতে কানেক্ট করতে হবে। সফলভাবে কানেক্ট হলে স্ট্যাটাস লাইটটি আরেকবার ব্লু হয়ে নিভে যাবে। এছাড়া আমার আরেকটা ব্যাপার ভালো লেগেছে যে, এই হেডফোনটি যখন লো ব্যাটারিতে চলে আসে, তখন কয়েক মিনিট পরপরি আপনাকে একটি  সাউন্ড ইফেক্টের সাহায্যে লো ব্যাটারি ওয়ার্নিং দেওয়া হয়।

সাউন্ড কোয়ালিটি

এটাই যেকোনো হেডফোনের সবথেকে বড় এবং সবথেকে দরকারী জিনিস। মুলত এই সাউন্ড কোয়ালিটির কথা ভেবেই আমরা হেডফোন এবং স্পিকার আপগ্রেড করি। এই হেডফোনটির সাউন্ড কোয়ালিটি নিয়ে বলতে হলে আমি বলবো ২৬০০ টাকার একটি হেডফোন হিসেবে এই হেডফোনটির সাউন্ড কোয়ালিটি খুবই ভালো, তবে অসাধারন কিছুনা। সত্যি কথা বললে, ২৫০০-২৬০০ টাকার আশেপাশে আপনি এর থেকে বেটার সাউন্ড কোয়ালিটিরও হেডফোন পাবেন। যেমন- আপনি চাইলে Sony অথবা JBL অথবা Xiaomi এর ভালো হেডফোনও পাবেন এই প্রাইস রেঞ্জে, তবে খুব সম্ভবত সেগুলো ওয়্যারলেস হবেনা। এছাড়া এই হেডফোনটি নিয়ে আমার সবথেকে বড় কমপ্লেইনটি ছিলো Bass।

এই হেডফোনটি Bass এর দিক থেকে খুবই দুর্বল ছিলো। প্রথমে আমি হেডফোনটিতে মিউজিক প্লে করার পর খুবই দুর্বল Bass এর কারনে কয়েকবার অফ করে অন করেছি। কিন্তু কোন লাভ হয়নি। তখন ভেবেছিলাম এটা হয়তো হার্ডওয়্যার ইস্যু। এর ২ দিন পর আমি ডিফল্ট এয়ারবাডটি চেঞ্জ করে বক্সে থাকা এক্সট্রা এয়ারবাডসগুলোর মধ্যে থেকে আরেকটু বড়ো সাইজের একটি এয়ারবাডস লাগাই। মজার ব্যাপার হচ্ছে, এই এয়ারবাড চেঞ্জ করার পর থেকে Bass অবিশ্বাস্যরকম ইম্প্রুভ হয়েছে এবং বর্তমানে এই হেডফোনটির Bass নিয়ে আমার কোনরকম কমপ্লেইন নেই।

ব্যাটারি লাইফ

আর ব্যাটারি লাইফের কথা বলতে হলে, মেইজু দাবী করে যে এই হেডফোনটি ২ ঘণ্টার মধ্যে ফুল চার্জ হতে পারে। তবে এখন পর্যন্ত আমি হেডফোনটি ৩ বার চার্জ দিয়েছি এবং প্রত্যেকবারই প্রায় ২ ঘণ্টার কম লেগেছে এটি ফুল চার্জ হতে। এছাড়া মেইজু আরও দাবী করে যে একবার ফুল চার্জ হওয়ার পরে ৬ ঘণ্টা ব্যবহার করা যাবে। আমি লাইট ইউজার এবং খুব বেশি মিউজিক শুনিনা। তাই আমার ৬ ঘণ্টার আরও বেশি গিয়েছে। তবে আনুমানিকভাবে যদি শুধুমাত্র লিসেনিং টাইমেরই হিসাব করেন, তাহলে এটি ফুল সাউন্ডে প্লে করলে ৫ থেকে ৬ ঘণ্টার মতো যাবে। মেইজু ৬ ঘণ্টার দাবী করেছে লাইট ইউজেস এবং হেভি ইউজেস একইসাথে কনসিডার করে।

শেষ কথা

তবে সত্যি কথা বলতে, এটির ফিচারস, এক্সট্রা অ্যাক্সেসোরিস, ভালো সাউন্ড কোয়ালিটির সাথে ব্লুটুথ কানেক্টিভিটি এইসবকিছু কনসিডার করলে আমি ২৬০০ টাকার মধ্যে এই হেডফোনটিকে অভারঅল একটি খুবই ভালো প্যাকেজ বলবো। এছাড়া সবথেকে মজার ব্যাপারটি হচ্ছে, Gearbest প্রায়ই এই হেডফোনটির ফ্ল্যাশ সেল দিয়ে থাকে যেখানে আপনি এই হেডফোন ২৫ ডলারের আশেপাশেও পেতে পারেন। এই প্রাইস পয়েন্টে আমি এই হেডফোনটি আরও বেশি করে রিকমেন্ড করবো। আপনি নিচে দেওয়া এই রেড বাটনটি ক্লিক করে Gearbest এ এই হেডফোনটির প্রোডাক্ট পেজে চলে যেতে পারবেন যেখানে সেই সময় এই হেডফোনটির প্রাইস দেখতে পাবেন।

Meizu EP51 Bluetooth Headphone

গিভঅ্যাওয়ে

এবার আসি গিভঅ্যাওয়ের ব্যাপারে। প্রথমেই বলে নিই, টেকহাবসের আগের গিভঅ্যাওয়েটিতে যারা অংশগ্রহন করেছিলেন এবং এটি নিয়ে যারা আমাদের ফেসবুক পেজ এবং গ্রুপে প্রশ্ন করেছিলেন, তাদের বলছি, আগের গিভঅ্যাওয়েটি Gleam Contest এ হোস্ট করা হয়েছিলো এবং সেখানেই কিছু সমস্যার কারনে সাময়িক সময়ের জন্য গিভঅ্যাওয়েটি আমরা বন্ধ রেখেছি। তবে যারা এন্ট্রি নিয়েছিলেন , তাদের সকলের এন্ট্রিই আমাদের কাছে সুরক্ষিত আছে। এই পূর্ববর্তী গিভঅ্যাওয়েটি আগামী মাসের ১০ তারিখের পরে আমরা আবার নতুন করে চালু করবো। তাই আশা করি টেকহাবসের সাথেই থাকবেন।

আর এই আজকের গিভঅ্যাওয়েটির স্পনসর Gearbest। যে হেডফোনটির রিভিউ করেছি আজকে, এই হেডফোনটিই গিভঅ্যাওয়ে করা হবে। এই গিভঅ্যাওয়ের উইনারের সাথে Gearbest থেকে যোগাযোগ করা হবে এবং Gearbest Standard Shipping এর সাহায্যেই তাদের অ্যাড্রেসে এই প্রোডাক্টটি সেন্ড করা হবে। এই গিভঅ্যাওয়েটি সম্পূর্ণ র‍্যান্ডম তাই প্রত্যেকের উইনিং চান্স একেবারেই সেম। এবার শুনুন গভঅ্যাওয়েতে অংশ নিতে হবে কিভাবে-

 ১. আপনাকে এই আর্টিকেলটি ফেসবুকে শেয়ার করতে হবে #TecHubs #GearbestBangladesh #Giveaway #THGiveaway এই চারটি ট্যাগ ব্যবহার করে। সাথে লিখবেন যে আপনি কেন এই হেডফোনটি জিততে চান। পোস্টটির প্রাইভেসি অবশ্যই পাবলিক রাখতে হবে। আপনি পোস্টটি ফেসবুকে শেয়ার না করলে আমরা আপনাকে ট্র্যাক করতে পারবো না এবং উইনার হিসেবে সিলেক্ট করতে পারবো না। তাই ফেসবুকে এই পোস্টটি নির্ধারিত ট্যাগগুলোর সাথে শেয়ার না করলে আপনার এন্ট্রিটি কাউন্ট করা হবে না।

 ২. আপনাকে এই হেডফোনটির প্রোডাক্ট পেজ ভিজিট করতে হবে।

লিংক- http://bit.ly/meizuep51giveaway 

৩.  আপনাকে Gearbest এর লেটেস্ট ডিলস পেজটি ভিজিট করতে হবে।

লিংক- http://bit.ly/gblatestdeals

৪.  আপনাকে Gearbest Bangladesh এর ফেসবুক পেজ ফলো (লাইক) করতে হবে।

লিংক- http://bit.ly/gearbestbdfb

এই ৪ টি কাজ করলেই গিভঅ্যাওয়েতে আপনার এনট্রি হয়ে যাবে। আপনি উইনার হিসেবে সিলেক্টেড হলে আপনার নাম টেকহাবস এবং Gearbest Bangladesh ফেসবুক পেজ থেকে আগামী ১৯ শে জুন, ২১৮ তারিখে অ্যানাউন্স করা হবে এবং Gearbest থেকেই আপনার সাথে যোগাযোগ করে আপনার প্রোডাক্টটি আপনার অ্যাড্রেসে সেন্ড করা হবে।

Good Luck!

Gearbest এর কিছু স্পনসরড প্রোডাক্টস এবং ডিলস আপনি এখানে চেক করতে পারেন-

***To win 1000USD coupon***
DIY Tools contest:
https://www.gearbest.com/promotion-diy-tools-special-907.html

Best cellphones on sale:
https://www.gearbest.com/promotion-EPIC-GRADUATION-GIFTS-special-2528.html

Apple accessories
https://www.gearbest.com/mobile-accessories-c_11231/

Xiaomi Notebook :
https://www.gearbest.com/promotion-xiaomi-mi-gaming-laptop-special-2527.html

Summer equipment:
https://www.gearbest.com/promotion-ICE-COOL-SUMMER-STYLE-special-2530.html

New customer bonus:
https://www.gearbest.com/welcome.html

72 hours to buy:
https://www.gearbest.com/promotion-Only-Flash-Sale-special-2478.html

তো এই ছিলো মেইজু ইপি৫১ স্পোর্টস ব্লুটুথ হেডফোনের একটি ফুল রিভিউ। আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। আশা করি আজকের আর্টিকেলটিও আপনাদের ভালো লেগেছে। কোন ধরনের প্রশ্ন বা মতামত থাকলে অবশ্যই কমেন্ট সেকশনে জানাবেন।

Feature Image Credit : AndroidCentral

সিয়াম একান্ত

আমি সিয়াম। পুরো নাম বলতে হলে, সিয়াম রউফ একান্ত। অনেক ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি আকর্ষণ এবং প্রযুক্তিকে ভালোবাসি। লাইফে টেকনোলজি আমাকে যতটা ইম্প্রেস করেছে ততটা অন্যকিছু কখনো করতে পারেনি। তাই পড়াশোনার পাশাপাশি প্রায় অধিকাংশ সময়ই প্রযুক্তি নিয়ে পড়ে থাকি। আশা করি এখানে আপনাদেরকে প্রযুক্তি বিষয়ক ভালো কিছু আর্টিকেল উপহার দিতে পারব।

2 comments

সাপোর্ট কমিউনিটি

হাজারো মেম্বারের ফেসবুক সাপোর্ট কমিউনিটি পরিবার থেকে যেকোনো টেক সমস্যার সমাধান পান নিমিষের মধ্যেই!

ইউটিউবে টেকহাবস

টেকহাবস ব্লগের টেক আর্টিকেল গুলো পড়তে ভালো লাগে? তাহলে নিশ্চিত করে বলতে পারি, টেকহাবস টিভি ইউটিউব চ্যানেলের টেক ভিডিও গুলোও ভালো লাগবে!

সামাজিক মাধ্যম

সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে টেকহাবসের সাথে যুক্ত হয়ে সকল আপডেট গুলো সবার আগে পান!